January 25, 2021, 11:17 pm

সংবাদ শিরোনাম:

বিজয় দিবস বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ

মোঃ শফিকুল ইসলাম : বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ সমার্থক শব্দ। মুক্তিযুদ্ধ ছাড়া যেমন বাংলাদেশ স্বাধীন হয়নি তেমনি জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান ছাড়া মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়নি। আমরা আজ স্বাধীন দেশ হিসেবে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে কথা বলছি, এসবকিছু সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধুর কারণে। কিন্তু আমরা এত অকৃতজ্ঞ জাতি যে তাঁকে নির্মমভাবে হত্যা করছি। এটা এখনও মেনে নিতে পারছি না। এটা ভাবতে পারছি না কিভাবে মানুষ এই লোকটাকে হত্যা করলো। ওই হত্যার কথা মনে করলে শরীর শিউরে ওঠে। যে লোকটা দেশ স্বাধীনের জন্য তাঁর মূল্যবান জীবনের অনেক গুরুত্বপূর্ণ দিন কারাগারে কাটিয়েছেন। তাঁর ছেলেমেয়ের ভালবাসা, আদর ও স্নেহ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এরকম কি কখনও গভীরভাবে চিন্তা করেছি? যদি চিন্তা করতাম তাহলে তো আমরা তাঁকে হত্যা করতে পারতাম না। এই হত্যাকা-ের কারণে বিশ্বের অনেক দেশের নাগরিক আমাদের গালমন্দ ও ঘৃণা করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর রাজনৈতিক জীবনে ৪ হাজার ৬৮২ দিন কারাভোগ করেছেন। শুধু ৭ দিন কারা ভোগ করেন বিদ্যালয়ের ছাত্র অবস্থায় ব্রিটিশ আমলে। বাকি ৪ হাজার ৬৭৫ দিন তিনি কারাভোগ করেন পাকিস্তান সরকারের আমলে। কেন এতদিন কারাভোগ করলেন? উত্তর সহজ কারণ বাংলাদেশের মানচিত্র এবং একটি স্বাধীন ভূখ- পাওয়ার জন্য। যে যুদ্ধের পটভূমি তৈরি হয় ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে। কোটি মানুষের ত্যাগে রচিত হয়েছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস। এই ইতিহাস আমাদের জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তাৎপর্য বহন করে। মহামারী করোনাভাইরাসের মধ্যেই এ বছরের বিজয়ের মাস শুরু হয়ে গিয়েছে। যদিও করোনার মধ্যে সীমিত আকারে উদযাপন হবে বিজয় দিবস। আমাদের বিজয় দিনে জাতির পিতাকে স্মরণ করতে হবে, তাঁর জন্য দোয়া করতে হবে যেন তাঁর আত্মা শান্তিতে থাকে চিরকাল। কারণ তাঁর ঋণ আমরা কোনভাবেই শোধ করতে পারব না। তবে কিছু লোক ভ-ামি করে বেড়াচ্ছেন। যাদের মুখে বঙ্গবন্ধু অন্তরে রয়েছে দুর্নীতি এবং অন্যান্য যত সব অপকর্মের প্রয়াস। এদের চিহ্নিত করে চরম শাস্তির আওতায় আনা উচিত। আরেক প্রকারের ধান্দাবাজ লোক রয়েছে, যারা অন্যের আদর্শগত সনদপত্র দিয়ে থাকে। কারণ কৌশলে এবং বুদ্ধিতে যখন প্রতিযোগীর সঙ্গে পারে না, তখন তাদের এই ধরনের ভ-ামি করতে দেখা যায়। যারা আওয়ামী লীগ করে বলে পরিচয় দিচ্ছে, এদের মধ্যে যদি কারও রাজনীতি নিয়ে সন্দেহ থাকে এবং হাইব্রিড আওয়ামী লীগ বলে সন্দেহ হয়, তাদের জন্য সরকারী গোয়েন্দা সংস্থা আছে। তারা চাইলেই খুব অল্প সময়ে হাইব্রিডদের নারী নক্ষত্র খুঁজে বের করতে পারে। আমাদের উচিত হবে কথায় নয় কাজে প্রমাণ করে দেখাতে হবে যে আমরা প্রকৃত বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও চেতনা বহন করি। যে যেখানেই থাকি না কেন সেখানেই জাতির জনকের আদর্শ বাস্তবায়ন করে দেখাতে হবে। আমাদের আরও সতর্ক হতে হবে ওইসব লোক সম্পর্কে যারা মিছিল দিয়ে গলা ফাটায় কিন্তু চাঁদা, ঘুষ এবং অবৈধ টাকা ছাড়া কিছু বোঝে না। তাদের বিষয়ে খুব দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সরকারপ্রধান প্রধানমন্ত্রীকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি। অন্যথায় এই শ্রেণীর মানুষের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে সমাজে নৈরাজ্য সৃষ্টি হতে পারে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আজও আমাদের নিকট চির ভাস্বর। এ বছর বিজয় দিবস অন্যভাবে উদযাপন হতো। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে আমরা সেভাবে উদযাপন করতে পারিনি। আমাদের মনে অনেক অতৃপ্তি রয়ে গেল।বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি তাঁর কন্যার সব কাজকর্মে লক্ষ্য করা যায়। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন ঢাকায় নিযুক্ত পাকিস্তানের হাইকমিশনার এবং পাকিস্তানকে ক্ষমা করতে অনুরোধ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, পাকিস্তান ১৯৭১ সালে যে নৃশংসতা চালিয়েছিল তা অমার্জনীয়। বাংলাদেশ কখনও তা ভুলতে এবং ক্ষমা করতে পারবে না। একাত্তরের ঘটনা ভুলে যাওয়া বা ক্ষমা করা যায় না। জাতির জনকের কন্যা তা প্রত্যাখ্যান করেন। জাতির জনককে দেখার সৌভাগ্য আমার হয়নি। কিন্তু শেখ হাসিনার কাজকর্ম ও চিন্তার মাধ্যমে শেখ মুজিবুর রহমানকে দেখতে পাই। এই হলো বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা। জাতির জনক ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি তাঁর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে যে ভাষণ দিয়েছিলেন, সেই ভাষণে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুননিরুমাণের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে থাকেন। মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত লক্ষ্য অর্জনে একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের ভঙ্গুর অর্থনীতিকে মজবুত অর্থনীতিতে পরিণত করতে, সমাজে সাম্য ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় এবং বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক রিলেশন তৈরিতে তাঁর ওইদিনের বক্তব্য ছিল সময়োপযোগী ও প্রশংসনীয়। সম্প্রতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙ্গা হয় এক জেলায়। এটা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। যে জাতির সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ওতপ্রোতভাবে জড়িত, যাকে ছাড়া বাংলাদেশ কল্পনা করা যায় না সেই লোকের প্রতি এতটুকু সম্মান আমরা দেখাতে পারছি না। এর চেয়ে খারাপ কিছু হতে পারে না। ফলে যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদের দ্রুত গ্রেফতার করে বিচারের ব্যবস্থা করা হোক।

 

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে ভাগ করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Best It Frim
Design & Developed BY N Host BD